ব্যাচ-‘৯৭ কালাপাহাড়িয়া ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের পূনর্মিলন অনুষ্ঠিত

0
255

বিশেষ প্রতিনিধি: এসএসসি ব্যাচ-‘৯৭ এর পূনর্মিলন অনুষ্ঠান কালাপাহাড়িয়া ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৯৯৭ সালে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের উদ্যোগে জাঁকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে সম্পন্ন হয়েছে। শনিবার (১৮ সেপ্টেম্বর) বিকেলে এক অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে ক্ষুদ্র পরিসরে কাঙ্ক্ষিত পূনর্মিলন অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়।

বিকেলে ট্রলারযোগে ৯৭ ব্যাচ এর শিক্ষার্থীগণ আড়াইহাজার উপজেলার কালাপাহাড়িয়া ইউনিয়নের নতুন ঐতিহ্য মায়াদ্বীপের উদ্দেশ্যে রওনা হন। নৌপথে ভ্রমনকালে মেঘনা বেষ্টিত দ্বীপাঞ্চলের প্রাকৃতিক অপরূপ দৃশ্য ভ্রমণপিপাসুদের বিমুহিত করে। পড়ন্ত বিকেলে প্রাকৃতিক অপরূপ সৌন্দর্য বর্ণনা করতে গিয়ে তারা বলেন আজকের এই স্মৃতি আমাদের জীবনে অম্লান হয়ে থাকবে। দীর্ঘ ২৩ বছর পর বন্ধুরা একত্রিত হতে পেরে সত্যিই আমরা আনন্দিত। কর্মব্যস্ততার কারণে ,সংসার, পরিবার পরিজন নিয়ে ব্যস্ত থাকায় আমাদের মধ্যে কিছুটা দূরত্ব সৃষ্টি হয়েছে ঠিকই কিন্তু আমাদের ব্যাচ এর কয়েকজন বন্ধু এসএসসি ব্যাচ-‘৯৭ নামে একটি মেসেঞ্জার গ্রুপ তৈরি করে চেষ্টা করেছেন সবাইকে একটি প্লাটফর্মে আনার জন্য। এক্ষেত্রে তারা সফল ও হয়েছেন।যার ফলে আমরা আজ সীমিত পরিসরে হলেও একত্রিত হতে পেরেছি। আশা করছি ভবিষ্যতে বৃহৎ পরিসরে এই আয়োজন অব্যাহত থাকবে।

আজকের আয়োজনে যারা ব্যস্ততার কারণে অংশগ্রহণ করতে পারেনি তারা আগামী অনুষ্ঠানে বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে আয়োজনকে ফলপ্রসূ করে তুলবেন। অনুষ্ঠানে উপস্থিত সদস্যবৃন্দ বলেন আমাদের এই আয়োজন সুবিধাজনক সময়ে প্রতিবছর অনুষ্ঠিত হবে। তারা বলেন, কালাপাহাড়িয়া ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয় থেকে আমরা যারা ৯৭ সালে এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিলাম সবাই একই পরিবারের সদস্য। তাই এবারের মতো প্রতিবছরই আমরা একত্রিত হয়ে আনন্দ উপভোগ করবো।

ব্যাচ-‘৯৭ এর সদস্যবৃন্দ মায়াদ্বীপে বেশ কিছু সময় অতিবাহিত করেন। এসময় তারা বিভিন্ন স্পট ঘুরে ঘুরে দেখেন, কেউ কেউ মনের মাধুরী মিশিয়ে এখানকার অপরূপ সৌন্দর্য বর্ণনা করেন, কেউবা ছবি তুলতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। তারা মনে করেন সঠিক পরিকল্পনা ও ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে মায়াদ্বীপকে নারায়ণগঞ্জ জেলার মধ্যে একটি অন্যতম পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলা সম্ভব হবে। বিশাল এলাকা জুড়ে বিস্তৃত জমিতে গড়ে তুলতে পারে ভ্রমণপিপাসুদের জন্য প্রশান্তির আবাস। এমনিতেই প্রতিদিন নৌপথে আশেপাশের বিভিন্ন জেলা থেকে সারি সারি ট্রলার নিয়ে বনভোজনের উদ্দেশ্যে বিপুল সংখ্যক মানুষের সমাগম হয় এখানে। স্থানীয়ভাবে হলেও যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করলে মায়াদ্বীপটি হবে আশেপাশের কয়েকটি জেলার প্রকৃতিপ্রেমীদের একান্তে প্রকৃতির সাথে মিশে গিয়ে আনন্দ বিনোদনের অনবদ্য কেন্দ্রস্থল।

সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসছে। পশ্চিমাকাশে সূর্য ডুবে যাচ্ছে কিন্তু মায়াদ্বীপের মনভোলানো অপরূপ সৌন্দর্য কিছুতেই ছাড়ছেনা। তারপরও চিরাচরিত নিয়মে বাসায় ফিরতে হবে, আবার জড়িয়ে পড়তে হবে প্রতিদিনের কর্মব্যস্ততায়। মনের ইচ্ছার বিরুদ্ধে হলেও প্রকৃতির মায়া ত্যাগ করে চলে আসতে হয়েছে প্রিয় মায়াদ্বীপকে ছেড়ে। তবে স্মৃতিতে অম্লান হয়ে থাকবে আজকের দিনটা।এমনই অনুভূতি প্রকাশ করে আয়োজকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন ব্যাচ-‘৯৭ এর সদস্য জিয়াউর রহমান, নজরুল ইসলাম, নবী হোসেন,সামসুল হক রনি, জাকির হোসেন প্রমুখ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here