সবাইকে পবিত্র ঈদ উল ফিতরের শুভেচ্ছা

0
72

সামনে পবিত্র ঈদ উল ফিতর। ঈদ সবার জন্য নিয়ে আসবে আনন্দ। প্রতিটি মুসলমানের ঘরে ঘরে ফুটবে খুশির ফুল। আমাদের সকল পাঠক , বিজ্ঞাপনদাতা , শুভান্যুধায়ী ও হকার ভাইদের জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা ও ঈদ মোবারক। ঈদ এলেই একটি কথা বার বার মনে পড়ে। আমরা শৈশবে পড়েছিলাম ‘ আজ ঈদ তাই মদিনার ঘরে ঘরে আনন্দ। কিন্তু পথের ধুলোবালিতে বসে একটি বালক কাঁদছিল। তাঁর গায়ে একটি ছেড়া শতছিণœ মলিন জামা। আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (সা:) ছেলেটিকে রাস্তা তেকে তুলে এনে নতুন জামা কিনে দিলেন। ছেলেটির মুখে হাসি ফুটলো। ’ আমরা আমাদের প্রিয় নবীর শিক্ষা কি মনে রেখেছি ? অবস্থা দৃস্টে মনে হয় আমরা নবীর শিক্ষা ভুলে যেতে বসেছি। এতিমদের প্রতি সহমর্মিতা দেখানো মনে রাখিনি। এখনো এমন বৈষম্য চোখে পড়ে যে , এক বাড়ীতে ঈদের দিনে পোলাও কোর্মা , কয়েক পদের সেমাই রানা হয়েছে। খাওয়া দাওয়ার ধুম লেগেছে। কিন্তু পাশের টিনের ঘরটিতে আট সদস্যের পরিবারের জন্য আধা কেজি সেমাই রান্না হয়েছে। তাও দুধ ছাড়া। পরিবারের ছোট সদস্যরা বাটিতে করে একটু একটু সেমাই খাচ্ছে। বড়রা সেদিকে চেয়ে আছে। কিন্তু খেতে পারছেনা। শুকনো সেমাই ওদের গলা দিয়ে নামতে চাইছেনা। এ দৃশ্য দেখে পিতা মাতার বুক ফাঁটে। নিজের ছেলে মেয়েদের মুখে একবেলা একটু দুধ সেমাই তুলে দিতে পারছেন না। পোলাও মাংসতো দুরের কথা। অথচ পাশের বাড়ীতে অঢেল খাবার নস্ট হচ্ছে। এমন প্রতিবেশীর প্রতি আল্লাহর দ্বিনের নবী বলেছেন , ‘তোমরা ঈদের দিনে নিজেরা ভাল খাবার খাও , প্রতিবেশীকেও খাওয়াও। এতিমদের হক পুরণ কর। ’
প্রতি বছর যাকাত নিয়ে কত খবর হয়। যাকাতের কাপড় সংগ্রহ করতে গিয়ে পা পিষ্ঠ হয়ে মানুষ মারা যায়। অনেকের হা পা পর্যন্ত ভাঙ্গে। যাকাত নিয়ে মানুষ ফ্যাশন করে। আজকাল একশ্রেণীর ধনি মানুষ যাকাত বিলি করতে গিয়ে নির্বাচণ করার মত পাবলিসিটি করতেও কুণ্ঠাবোধ করেননা। তবে এ ক্ষেত্রে আমরা আড়াইহাজার উপজেলাবাসী বেশ ভাগ্যবান বলতে হবে। কেননা এখানকার পয়সাওয়ালা মানুষ যাকাত বিলি করেন নিরবে। বাড়ী বাড়ী নিজেদের লোক দিয়ে যাকাতের কাপড় পৌঁছে দেন। অথবা কোন দু:স্থ লোক ধনী ব্যক্তির কাছে গেলে তাকে সচরাচর খালি হাতে ফেরত দেননা। আমরা গতবারও এ বিষয় নিয়ে কিঞ্চিত লেখালেখি করে ছিলাম। এবারো বলছি , সুধিসমাজ আসুন আমরা যাকাত আদায় করি। এমনভাবে দান করবো যাতে ডান দিয়ে দান করলে যাতে বাম হাত ও টের না পায়।
পবিত্র রমজান মাসে দুনিয়ার উপর আল্লাহর খাস রহমত থাকে। সেই হিসেবে আড়াইহাজার উপজেলা বাসীর উপর খাস রহমত ছিল। তাছাড়া এ বছর রোযার পুরো মাসটি আড়াইহাজার সদর বাজারটি ছিল যানজট ভরা। পৌর সভার ময়লা আর্বজনা যত্রতত্র রাখা হয়েছে। মার্কেট করতে আসা লোকদের চরম কস্টের মধ্যে পড়তে হয়েছে। পৌরসভার কর্তাদের এই বিষয়ে সতর্ক হওয়া উচিৎ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here